চলন্ত বাসে ঢাবি ছাত্রকে মারধর ও হত্যার হুমকি, শাহবাগে ভাঙচুর

চলন্ত বাসে ঢাবি ছাত্রকে মারধর ও হত্যার হুমকি, শাহবাগে ভাঙচুর

টিকিট কাটা নিয়ে তর্কের জেরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রকে মারধর ও হত্যার হুমকির অভিযোগ উঠেছে ঢাকা নগর পরিবহনের একটি বাসের চালকের বিরুদ্ধে।

ওই ছাত্রের অভিযোগ, চালকের পক্ষ হয়ে অজ্ঞাত একজন ব্যক্তি তাকে মারধর করেছেন৷ খবর পেয়ে রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী নগর পরিবহনের তিনটি বাসে ভাঙচুর চালিয়ে সেগুলো আটক করেন।

রবিবার সন্ধ্যায় ভাঙচুর করা বাসগুলো শাহবাগে পাবলিক লাইব্রেরির সামনে এনে রাখা হয়েছে। মারধরের শিকার আজমান সামীর ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী৷ মারধর ও লাঞ্ছনার ঘটনায় মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজমান সামীর বলেন, তিনি বিকেল ৩টার দিকে শনির আখড়া থেকে মৎস্য ভবন মোড়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে নগর পরিবহনের ডাবল ডেকার বাসে উঠেছিলেন। তাড়াহুড়ার কারণে টিকিট না নিয়েই তিনি বাসে ওঠেন। পরের স্টপেজে টিকেট সংগ্রহ করতে গেলে বাসের চালক তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। মৎস্য ভবন মোড়ের কাছে নামতে গেলে গেট আটকে বাসেরই একজন যাত্রী তার গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করেন। তখন অন্য যাত্রীরা ছুটে এসে আমাকে আক্রমণ থেকে রক্ষা করেন৷ এই আকস্মিক অদ্ভুত আচরণের কারণ জানতে চাইলে ওই ব্যক্তি আমাকে অকথ্য গালিগালাজ করেন ও হুমকি দিতে থাকেন। পরে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনে বাস থেকে নেমে যাওয়ার পর তার ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়।

তবে বাস ভাঙচুরে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে আজমান সামীর বলেন, তিনি শাহবাগ থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

শাহবাগ থানার ওসি মওদুদ হাওলাদার বলেন, ভাঙচুরের কথা শুনেছি। থানায় গিয়ে এ ব্যাপারে পরবর্তী ব্যবস্থা নেবো।

ঢাবির প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানী দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ঘটনার কথা আমি শুনেছি। আমাদের শিক্ষার্থীকে আঘাত করা হয়েছে। এই ঘটনা তদন্তে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা চাওয়া হবে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top